পদ্মা সেতুর প্রশংসা, নির্মাণ ব্যয় নিয়ে প্রশ্ন মান্নার
স্বপ্ন নিউজ ডেস্ক
ডিসেম্বর ১১, ২০২০, ১২:১৩ অপরাহ্ণ

পদ্মা সেতুকে সরকারের ভালো উদ্যোগ অভিহিত করে এর নির্মাণ ব্যয় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।
শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ সার্বভৌমত্ব পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এই প্রশ্ন তুলেন। প্রথম কেন্দ্রীয় সম্মেলন উপলক্ষে ‘আমরা সবাই বাংলাদেশি, সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ঐক্য গড়ি’ শীর্ষক এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘যত গালি দেন, উনি (শেখ হাসিনা) পদত্যাগ করবে না। আমি এজন্য ঠিক করেছি, তাকে একটা প্রশংসা করি। এটা কোনো দালালি করছি না। সত্যি সত্যি আমি মনে করি, পদ্মা সেতু একটা ভালো কাজ হয়েছে। এটা একটা তো স্বপ্নের সেতু তো বটেই, অন্তত দক্ষিণাঞ্চলের জন্য তো বটেই। কিন্তু এই সেতুর নির্মাণ নিয়ে কথা আছে।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের পাশে আসাম এবং অরুনাচল এই দুইটা রাজ্যের মাঝামাঝি একটা ব্রিজ করা হয়েছে এটার নাম ভুপেন হাজারিকা সেতু। ৯ দশমিক ১৫ কিলোমিটার লম্বা। পদ্মা সেতু হচ্ছে ৬ দশমিক ২৫ কিলোমিটার। ৯ দশমিক ১৫ কিলোমিটার লম্বা সেতু নির্মাণ করতে লেগেছে ১ হাজার ১২৮ কোটি টাকা। আর আমাদের সোয়া ৬ কিলোমিটার সেতু যেটা এখনো হয় নাই- এটা শুরুতে প্রাক্কলন ধরা হয়েছিলো ১০ হাজার কোটি টাকার মতো।’

‘এখন পর্যন্ত ঠিক কত হাজার কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে একদম আপডেটেড হিসাব করা হয়নি। সবাই হিসাব মনে করছেন- সর্বশেষ যেটা বলেছিলো ৩০ হাজার কোটি টাকা, তার সঙ্গে আরো ১০ থেকে ২০ হাজার কোটি টাকা যুক্ত হয়েছে। কমপ্লিট করতে আরো হয়তো ২০ হাজার কোটি টাকা লাগবে। তার মানে এই সোয়া ৬ কিলোমিটার লম্বা সেতু বানাবার জন্য ৬০ থেকে ৭০ হাজার কোটি টাকা লাগবে।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমি বলতে কী পারি না- ওরা যদি সোয়া ৯ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু ১ হাজার ১২৮ কোটি টাকা দিয়ে করতে পারে, এখানে (পদ্মা সেতু) এতো টাকা লাগবে কেনো? খুব ডাট মারায়। আমরা কাউকে কেয়ার করি না, নিজেদের টাকায় করেছি। কেনো? আপনারা তো চীন থেকে লোন নিয়েছেন। ওই টাকার মধ্যে চীনা কোম্পানি নাই তারা করেছে না। তারা সুদ দিচ্ছে না। সুদের হার কত? মিনিমাম ৪%।’

মান্না বলেন, ‘আর বিশ্বব্যাংক যে টাকা দিতো সেই টাকার সুদের হারের পরিমাণ ছিলো পয়েন্ট দুই ফাইভ পারসেন্ট থেকে পয়েন্ট ফাইভ জিরো। মানে পয়েন্ট ফাইভ। নেননি কেনো সেই টাকা? ওরা (বিশ্ব ব্যাংক) একটা দুর্নীতির অভিযোগ করেছিলো। দুর্নীতির তদন্ত করেননি। শুধু গায়ের জোরে বলেছেন- নেবো না তোমাদের টাকা। কেনো? কারণ বিশ্বব্যাংক যদি টাকা দিতো তাহলে বিশ্বব্যাংক এটা মনিটর করতো এবং তখন এই ধরণের দুর্নীতি করার সুযোগ থাকতো না। এখন এই যে ৬০ থেকে ৭০ হাজার কোটি টাকা খরচ করে সেতুটা হচ্ছে, এই সম্পর্কে কোনো হিসাব চাইতে পারবো? চাইলে সরকার দেবে?’
আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক সুভাষ চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে সভায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কেন্দ্রীয় নেতা অর্পনা রায়, প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

আপনার মতামত লিখুন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়েন বড় বোন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।শুক্রবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ আয়োজিত আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়েন তিনি।

ঢাকা অফিস

সম্পাদক : মোঃ ইয়াসিন টিপু

নাহার প্লাজা , ঢাকা-১২১৬

+৮৮ ০১৮১৩১৯৮৮৮২ , +৮৮ ০১৬১৩১৯৮৮৮২

shwapnonews@gmail.com

পরিচালনা সম্পাদক : মিহিরমিজি

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | সপ্ন নিউজ
Powered By U6HOST